ঠিকাদার ও আদালত কর্তৃক বারিত পক্ষ যৌথভাবে বসত ভিটায় হামলা ভাংচুর। দায়ের কোপে বৃদ্ধা আহত, বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে স্কুল ছাত্র আহত।

21-05-2022 তারিখে বলরামপাড়া ও ঘোনাপাড়া কানেক্টিং সড়কে আদালত কর্তৃক বারিত বিরোধী পক্ষকে ঠিকাদার কর্তৃক ডেকে এনে 144 ধারা জারিকৃত বসত ভিটায় এস্কাবেটর দিয়ে  হামলা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।

মহেশখালী নিউজ ডট কম এর সম্পাদক রওশন আলী মালিকানাধীন বসতভিটা এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। রওশন আলী জানায় গত কিছুদিন আগে পৌর মেয়র অত্র কানেক্টিং সড়ক নির্মানের জন্য অত্র রাস্তার উভয় পাশে ভুমি ছেড়ে দেওয়ার জন্য লাল রং দ্বারা চিহ্নিত করে যান। তৎ অনুযায়ী গত 19-05-2022 রওশন আলী বৈদুতিক তার ও বাতি , সিসি ক্যামেরা সরিয়ে ভিতরের গাছে স্থাপন করেন। অত্র বসত ভিটায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের 144 ধারা জারি রয়েছে এবং বিরোধীয় পক্ষকে প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়। প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা নোটিশ মহেশখালী থানার এএসআই আলী আকবর কর্তৃক 13/05/2022 তারিখে স্বাক্ষরিত দেখা যায়। প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা নোটিশ পাওয়ার পর হতে বিরোধী পক্ষ আরো বেশী উত্তেজিত হয়ে গত 20/05/2022 তারিখ বিকালে হামলা করে সিসি ক্যামেরা ও বৈদ্যুতিক ভাল্ব ভাংচুর করে ও  গাছ কর্তন করে নিয়ে যায়। এ নিয়ে 21-05-2022 রওশন আলী লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মহেশখালী থানায়। অভিযোগ দায়েরের পর থানা প্রশাসনের নিরবতায় রাস্তা নির্মাণ ঠিকাদার প্রবেশ নিষেধাজ্ঞায় থাকা পক্ষকে ডেকে এনে এক্সেবেটর দিয়ে লাল চিহ্নিত সীমানার আরো ভিতরে রক্ষিত গাছগাছালির ক্ষতি সাধন করেন এবং লুটপাটে সহযোগীতা করেন। এসময় বিরোধী পক্ষ দা কিরিচ, লোহার রড় লাঠি নিয়ে মারমুখি অবস্থায় ছিল বলে জানা যায়। সন্ধ্যার সময় বিরোধী পক্ষ অশ্লিল গালিগালাজ করলে রওশন আলী ফুফু বেগম খাতুন তাদের কে নিভৃত করার চেষ্ট করলে আসামী মাবিয়া হাতে থাক দা দিয়ে কোপ দিলে বেগম খাতুনে পায়ে মারাত্মক কাটা জখম হয়।

লাল রং সীমানার ভিতরে রক্ষিত ঘেড়া বেড়াও ভাংচুর  ও আগে থেকে রক্ষিত গাছ লুঠপাট করে 150000/ টাকার ক্ষতি সাধন করেন বলে জানা যায়। ফলে সীমানার ঘেড়া বেড়া ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বৈদ্যুতিক তার ছিড়ে পড়ে যায়। ফলশ্রুতিতে মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র মেহেদি হাসান বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে মারাত্মক জখম হয়।

ব্যাক্তিমালিকানাধীন ভুমিতে পৌরসভার রাস্তা করতে ভুমি মালিক কে নোটিশ দিয়ে জানানোর নিয়ম থাকলেও পৌরসভা হতে কোন নোটিশ দেয়া হয়নি বলে জানা যায়। নিয়ম অনুযায়ী ভুমির ক্ষতিপূরণ পাওয়ার অধিকার থাকলেও উল্টো এক্সেবেটর দিয়ে হামলা করে ক্ষতিসাধন করায় সকল ভুমি মালিকদের চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে বলে জানা যায়।

লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পরও থানা প্রশাসন এভাবে নিরব থাকলে যেকোন সময় রক্ষক্ষয়ী সংঘর্ষ হবে বলে সচেতন এলকাবাসী আশংকা করছেন।

পূর্বের খবরকক্সবাজারে বেড়াতে এসে অতিরিক্ত মদ্যপানে তরুণীর মৃত্যু!
পরবর্তি খবর’ইভিএমের ভুল ধরতে পারলে ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার’