ক্যাম্প থেকে অস্ত্র-গোলাবারুদসহ আরসার ৪ সদস্য আটক

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নাশকতার পরিকল্পনায় অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ অবস্থান নেয়া মিয়ানমারের সন্ত্রাসী সংগঠন আরকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) ৪ সদস্যকে আটক করেছে এপিবিএন।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১২টার দিকে উখিয়ার জমতলীস্থ ১৫ নম্বর ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়েছে। এ সময় জব্দ করা হয়েছে ৫টি ওয়ান শুটারগান, একটি এলজি, ৩৬ রাউন্ড রাইফেলের গুলি, ৮ রাউন্ড গুলির খোসা, ৪ রাউন্ড শর্টগানের কার্তুজ, ৩টি হাতের তৈরি গ্রেনেড, ৩টি বড় পটকা, একটি ওয়াকিটকি সেট, ২টি বড় ছোরা, ১টি গুলতি এবং ২টি লোহার ছিকল।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উখিয়াস্থ ৮ এপিবিএনের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ৮ এপিবিএন এর অধিনায়ক অ্যাডিশনাল ডিআইজি মো. আমির জাফর।

আটক ব্যক্তিরা হলেন: মোহাম্মেদ আমিন (২৩), পেটান শরীফ (৪৩), আবুল কাশেম (৩৩) ও সৈয়দুর রহমান (২৫)। এরা উখিয়ার বিভিন্ন ক্যাম্পের বাসিন্দা এবং আরসার শীর্ষ সন্ত্রাসী বলে জানিয়েছে এপিবিএন।

আরও পড়ুন: আরসার লজিস্টিক কমান্ডার হাফেজ উল্লাহসহ গ্রেফতার ৩

সংবাদ সম্মেলনে ৮ এপিবিএন এর অধিনায়ক অ্যাডিশনাল ডিআইজি মো. আমির জাফর বলেন, ‘আরসা সন্ত্রাসীরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নাশকতা সৃষ্টির জন্য বিপুল পরিমাণ অস্ত্র গোলাবারুদসহ ১৫ নম্বর ক্যাম্পে অবস্থান নেয়ার গোপন সংবাদে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে এপিবিএন সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছালে আরসা সন্ত্রাসীরা দৌড়ে পালাতে শুরু করে। তাদের ধাওয়া করে ৪ জনকে আটক করা গেলেও আনুমানিক ১০-১২ জন পালিয়ে যায়। আটকদের কাছ থেকে জব্দ করা হয় এসব অস্ত্র ও গোলাবারুদ।’

তিনি আরও বলেন, ‘গোয়েন্দা তথ্য ও আটক সন্ত্রাসীদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় তারা ক্যাম্পের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার জন্য বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা করছিল। এ ব্যাপারে উখিয়া থানায় মামলা করে আটকদের সোপর্দ করার প্রক্রিয়া চলছে।

পূর্বের খবরখুটাখালীতে রোহিঙ্গা নাগরিকের এনআইডি করার অভিযোগ
পরবর্তি খবরকক্সবাজার নাম বিভ্রাট