কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে ফার্নিচার ক্রয়ে দুর্নীতি : আসামি তিন চিকিৎসক

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের আসবাব ক্রয়ে দুর্নীতির অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বুধবার দুদকের কক্সবাজার সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক মুনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে একই কার্যালয়ে মামলা দুটি করেন। পরে মামলাগুলো নথিভুক্ত করেন একই কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন।

মামলায় কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ ডা. মোহাম্মদ রেজাউল করিম, সাবেক সহযোগী অধ্যাপক (বর্তমানে চট্টগ্রাম বিজিসি ট্রাস্ট মেডিকেল কলেজে কর্মরত) ডা. মোহাম্মদ আব্দুল মাজেদ, সহযোগী অধ্যাপক ডা. আবুল বরকত মোহাম্মদ আদনান, মেসার্স এসএল ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মিঞা ছাদুল্লাহ বিন হাসান, নির্ঝরা এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আফসানা ইসলাম কাকলী ও কক্সবাজার জেলা মার্কেটিং কর্মকর্তা শাহজাহান আলীকে আসামি করা হয়েছে।

কটি মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, আসবাবের চাহিদা না থাকা সত্ত্বেও একে অপরের সহযোগিতায় নিম্নমানের আসবাব অতিরিক্ত দামে কিনে অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ করেছেন তারা। ভ্যাট ও আয়কর ছাড়া ১ কোটি ৫৩ লাখ ৮৪ হাজার ৬০৯ টাকা ঠিকাদার উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন এবং ২ লাখ ৩৮ হাজার ৬১২ টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করা হয়। এছাড়া চাহিদা নিরূপণ না করে কার্যাদেশ প্রদানের ফলে নির্ঝরা এন্টারপ্রাইজ কর্তৃক সরবরাহ করা আসবাবের মধ্যে ৭৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৬৫ টাকার আসবাবের কোনো প্রয়োজনীয়তা না থাকা সত্ত্বেও, তা সরবরাহ করে সরকারের আর্থিক ক্ষতিসাধন করা হয়েছে। আরেক মামলাতেও একইভাবে উচ্চমূল্যে আসবাব কিনে ও দুটি ভুয়া জিও তৈরি করে আর্থিকভাবে সরকারের ১৩ কোটি ৬১ লাখ ৪৭ হাজার ৬৮৭ টাকা ক্ষতির অভিযোগ করা হয়েছে।

এর আগে ৪ ডিসেম্বর দুটি মামলা করার নির্দেশনা দিয়ে কমিশনের পক্ষ থেকে কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালককে চিঠি দেন উপপরিচালক (অনুসন্ধান ও তদন্ত) খান মোহাম্মদ মিজানুল ইসলাম।