আমলারা হঠাৎ নিরপেক্ষ হয়ে যাচ্ছেন কেন?

বুধবার সচিবালয়।। একজন গুরুত্বপূর্ণ সচিবের কাছে গেলেন একজন জনপ্রতিনিধি। সংসদ সদস্য তার নির্বাচনী এলাকার একটি কাজ সংক্রান্ত ফাইল সচিবের টেবিলে আটকে আছে বলে জানালেন এবং দ্রুত ফাইলটা নিষ্পত্তি করার জন্য অনুরোধ জানালেন। সচিব তার পূর্ব পরিচিত এবং ঘনিষ্ঠও বটে। কিন্তু এবার তিনি ভিন্ন অবয়বে দেখা দিলেন। সচিব জনপ্রতিনিধিকে বললেন, ‘ফাইল তার নিয়মেই যাবে। এটার জন্য আমাকে তদবির করে লাভ নেই। এখন অনেক ঝামেলায় আছি। দেশে কি হচ্ছে আমরা বুঝি না। এ ধরনের তদবির এখন আর গ্রহণ করতে পারছি না। দুঃখিত।’

সচিবের এই আচরণে হতবাক হয়ে গেলেন সংসদ সদস্য। সংসদ সদস্য বলছিলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই সচিবের সঙ্গে আমার পরিচয়। তিনি আগে এলে চেয়ার থেকে উঠে দাঁড়াতেন। আমার কোন কাজ থাকলে সেই কাজের জন্য সংশ্লিষ্ট ডেস্ককে ফোন করতেন, দ্রুত কাজ নিস্পত্তি করার জন্য তৎপরতা দেখাতেন। কিন্তু আজকে তিনি যে আচরণটা করলেন তা আমি স্বপ্নেও ভাবিনি।

শুধু এই সচিব নয়, সচিবালয়ের চেহারা গত কিছুদিনে পাল্টে গেছে। বিশেষ করে ২২ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কয়েকজনের ওপর যে ভিসা নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে তারপর সচিবালয়ের দৃশ্যপট পাল্টাতে শুরু করেছে। অনেকেই এখন নিরপেক্ষ হওয়ার প্রতিযোগীতায় নেমেছেন। আওয়ামী লীগের নেতা বা আওয়ামী লীগের জনপ্রতিনিধিরা আসলে তাদেরকে এড়িয়ে যাওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কোনো বিতর্কিত ফাইল হলে সেই ফাইলটি নিচে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। ফাইল অনুমোদন না করে ফাইলটিকে ঝুলিয়ে রাখার কৌশল নিয়েছেন অনেক আমলা।

বাংলাদেশে ২০০৯ এর পর থেকে আমলাতন্ত্রের মধ্যে আসতে আসতে রাজনীতিকরণ ঘটে থাকে এবং রাজনীতি প্রশাসনের মধ্যে এমন ভাবে জড়িয়ে যায় যে আওয়ামী লীগের চেয়েও বড় আওয়ামী লীগের কর্মী হয়ে যান প্রশাসনের কর্মকর্তারা। প্রশাসনের কাজের চেয়ে রাজনীতিতে তাদের মনোযোগ ছিল বেশি। কিছুদিন আগেও আগামী নির্বাচন কিভাবে হবে, নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে কিভাবে জেতাতে হবে, কোন আসনে কে প্রার্থী হলে জয়যুক্ত হবেন ইত্যাদি নানা আলাপ-আলোচনা হতো সচিবালয়ে। কিন্তু এখন সেই আলাপ-আলোচনা বন্ধ হয়ে গেছে। উল্টো কারা ভিসা স্যাংশন খেল, কার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কে থাকেন বা কার কোন সম্পত্তি পশ্চিমা দেশগুলোতে আছে সে নিয়ে মৃদু আলাপ আলোচনা হয় বটে। কিন্তু আওয়ামী লীগকে জেতাতে হবে এই ধরনের বক্তব্য এখন কান পাতলে আর শোনা যায় না।

সচিবালয়ে যখন এই অবস্থা তখন মাঠ প্রশাসনের চিত্র নয়। কয়েকদিন আগেই এক ডিসি আওয়ামী লীগকে আবার ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রত্যাহার হয়ে গেছেন। এরপর থেকেই প্রশাসনে মাঠ পর্যায়ে নিরপেক্ষতা দেখা যাচ্ছে। জেলা প্রশাসক, এমনকি ইউএনওরা জনপ্রতিনিধি এবং আওয়ামী লীগের নেতাদের এড়িয়ে চলছেন। আগে যে সমস্ত আওয়ামী লীগ নেতার সঙ্গে চা না খেয়ে দিনের কাজ শুরু করতেন না ডিসি, ইউএনওরা এখন তার উল্টো চিত্র। চাকরি বাঁচানোর জন্য এখন তারা আওয়ামী লীগের নেতাদেরকে কার্যালয়ে না আসার জন্য অনুরোধ করছেন। যারা সত্যি সত্যি আওয়ামী লীগের প্রতি অনুরক্ত বা আওয়ামী লীগকে পছন্দ করেন তারা ব্যক্তিগত ফোন ব্যবহার করছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলার জন্য। প্রশাসনের মধ্যে একটা নিরপেক্ষতার আবহ তৈরি হচ্ছে ক্রমশ। এর একটা কারণ যেমন ভিসা নিষেধাজ্ঞা অন্যটা হল প্রশাসনের পক্ষপাত নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদন। আর ফলে প্রশাসন হঠাৎ করেই যেন নিরপেক্ষ হয়ে গেছে।

উৎসঃ   বাংলা ইনসাইডার

পূর্বের খবরযেভাবে বাদ দেয়া হলো তামিমকে
পরবর্তি খবরবাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে ভারতের কথা না বলাটাও একটা বার্তা’